“চালের গুড়া পিঠা উৎসব ২০১৯

রমজানের আর মাত্র কয়েক দিন বাকী। সম্ভবত ৬ইমে থাকে শুরু হবে রোজা। আগামী ১মাস ইফতার পার্টি ছাড়া টরন্টোর বাংলা পাড়া ডানফোর্থে কোনো উল্লেখযোগ্য আয়োজন হয়তো থাকছে না। তাইতো রোজার আগের শনিবার “চালের গুড়া পিঠা উৎসব ২০১৯ ” এর জন্য জোরশোর আয়োজন।
অনুষ্ঠানটা টরন্টো বাংলাদেশ সেন্টারের অর্থ সংগ্রহ করার জন্য আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ সেন্টার একটা অলাভজনক সংস্থা। আজ থাকে ৬ বছর আগে বাংলাদেশ সেন্টারের অর্থ সংগ্রহের জন্য স্বপ্রণীদিত হয়ে মৌ মধুবন্তী পিঠা উত্সবের প্রস্তাব করলে বাংলাদেশ সেন্টার আগ্রহের সাথে তা গ্রহণ করেন। স্বাচ্ছাশ্রমের ভিত্তেতে গত ৬ বছর তিনি এই মহৎ দায়িত্ব পালন পালন করে আসছেন। গত বছরের সংগৃহিত ৪৫০০ ডলার দিয়ে বর্তমানে বাংলাদেশ সেন্টারের সংস্কারের কাজ চলছে। এবারের লক্ষ্য ৬০০০ ডলার যা দিয়ে সেন্টারের জন্য নতুন ফার্নেস কেনা হবে। আগের ফার্নেসটা খারাপ হয়ে যাবার কারণে , শীত আর গ্রীষ্ম কাল উভয় সময়ই তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা যায় না।
অন্যমেলার করিডোরে দাঁড়িয়ে কথা হচ্ছিলো মৌ অপার সাথে।বললেন এতবড় দায়িত্ব একা পালন করা একটা বড় ধরনের একটা চ্যালেঞ্জ । তাইতো এবার ৩৫ সদস্যের একটা কমিটি করা হয়েছে। যার সমন্বয়কারী মৌ মধুবন্তী। বললেন “পিঠাগুলি আমরা অনুদান হিসাবে পাই। তবে আমরা সীমিত সংখ্যক পদের পিঠা রাখি। যেমন এইবার ১২ রকমের পিঠা থাকবে তার সাথে কিছু ঝালের খাবার। তবে কেউ যদি আগ্রহি হয়ে কোনো অনুদান দিতে চান তারাও সাদর আমন্ত্রিত।”
অনুষ্ঠানটা সবার জন্যে উন্মুক্ত। সবার প্রতি অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রন জানালেন মৌ মধুবন্তী।
চালের গুড়া পিঠা উৎসব ২০১৯
তারিখ :- ৪ঠা মে ২০১৯, শনিবার
সময়:-দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা
স্হান :- বিসিসিএস, ২৬৭০ ডানফোর্থ এভিনিউ (দোতালা)

1,336 total views, 25 views today

প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। পোষ্ট লেখক অথবা মন্তব্যকারীর অনুমতি না নিয়ে পোস্টের অথবা মন্তব্যের আংশিক বা পুরোটা কোন মিডিয়ায় পুনঃপ্রকাশ করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *