যে গল্প হয়নি বলাঃ –

যার হৃদয় ছিল তার বয়সের চেয়ে বড় , দেশের জন্য , মায়ের জন্য , যার ছিল অফুরান্ত ভালোবাসা সেই অকুতোভয় যুবকের গ্ ল্পেই রচিত হয়েছে আমার দেশ । সে কোন বিখ্যাত পরিবার থেকে আসা কেউ নয় ছিল এক সচ্ছল কৃষক- এর সন্তান , যুদ্ধ করে মাতৃভূমিকে হানাদারমুক্ত করার সংকল্প নিয়ে ফিরে আসেন নি আর ।

আমি এতোক্ষন যার কথা বললাম সে আমার বাবার ভাই এর সন্তান আমার চাচাত ভাই মোঃ ইউনুস মোল্যা । ১৯৭০ এর শেষ দিকে দেশের অবস্থা তেমন সুবিধা জনক না , চারিদিকে উৎকণ্ঠা এমন এক সময়ে তার পাকিস্তান নেভিতে তার চাকুরী হয়ে যায় । সদ্য আই আস সি পাশ । তার মা কিছুতেই ছেলেকে চাকুরীতে যেতে দিবেন না , দুধ ভাতে হাত দিয়ে প্রতিজ্ঞা করালো সে যাবে না । এতে কিন্তু সে খুব খুশী ই হলো , মায়ের কথাও রাখা হলো ।
একাত্তরে এপ্রিলের প্রথমদিকে ছোট্ট এক টি চিরকুটে শুধু কয়েকটি কথা লিখা ” মা বাবা আমি যুদ্ধে যাচ্ছি ” তোমাকে বলে যেতে পারব না বলেই পালিয়ে যাওয়া , মাফ করে দিও মা ।
মার্চের শেষের দিকে যখন বাতাসে বারুদের গন্ধ আর চতুর্দিকে শুধু লাশের খবর সে নাকি প্রায় ই বলত এভাবে বাঁচব কেন ? বাইরে ঘরে যেখানেই থাকি মৃত্যু এড়াতে পারব না । তার চেয়ে যুদ্ধ করি , দেশ স্বাধীন হলে সবাই বলবে তুমি মুক্তি যোদ্ধার মা আর মরে গেলে শহীদের মা । ছেলের কথায় সবার আতংকে দিন কাটে সবার , কিন্তু চিন্তা করতে পারে নাই সে রাতের অন্ধকারে চলেই যাবে ছেলে তার ।

আমরা তখন ছোট মুক্তিযুদ্ধ অতো বুঝি না ,মনে আছে কারো কথায় হাসিতে ঘুম ভেঙ্গে গেল , ইউনুস ভাই আর সাথে তার বন্ধু মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের বাড়িতে এসছে ( চরভদ্রাসনে ) । উনি ওই কলেজ থেকেই ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেছেন । আমার মা সবার ছোট চাচী , জিজ্ঞেস করলো ভাত খাবি ? বলল আমার সাথে আরোও লোক আছে , আস্তে আস্তে বাড়ির অন্য সবাই চলে আসল, সবাই খুব আস্তে কথা বলছে , বাড়ির অন্যান্য ঘর থেকে ভাত এনে খাওয়ানো হলো ওনাদের , যাবার সময় শুধু বলে গেল আমি যুদ্ধে গিয়েছি , আমাদের কারো বাড়ীতে যেন ভুলেও পাকিস্তানের পতাকা না উড়ে , ওনাদের সবার হাতে স্টেনগান । আমার মেজো কাকা , ধলা কাকা খুব ভয় পেয়ে গেলেন, বললেন বাবারা তোমরা শান্ত হও । সেটাই ইউনুস ভাইকে আমার শেষ দেখা ।

তার পরে শুধু কারো কারো নাম শুনেছি নিখোঁজ হবার ,হালিম মৃধা , ফকরুজ্জামান, কালাম মাস্টার, ফজর মোল্যা , ওয়াসেল শিকদার , জালাল কমান্ডার আসলে এরা সবাই বাড়ী থেকে পালিয়ে যুদ্ধে গিয়েছিল , আর দেখতাম সবার কানা ঘুষা এরা ফিরে আসবে কি ?
মনে আছে চাচী সেই মাধব দিয়া থেকে আসত তার ছেলের খোঁজে , প্রায় পাগলের মত করত, কোন এক জনের মাধ্যমে খবর পাঠানো হলও মা তাকে দেখতে চায় । অনেক অনুরোধে এসেছিল রাতের অন্ধকারে একবার মাধব দিয়ার সেই বাড়ীতে , বলে গিয়েছিল তার মাকে আর মাত্র কয়েকদিন দেশ স্বাধীন করেই ফিরে আসবে ।

না আর ফিরে আসেনি । দেশ স্বাধীন যেদিন হলো সেই ১৬ ই ডিসেম্বর ভোররাত্রে যখন বিহারীরা পালিয়ে যাচ্ছিল ওই সময়ে মুক্তিবাহিনীর ও বিহারীদের মধ্যে যুদ্ধ হয় । বিহারীরা পিছন থেকে গুলি করে দেয় ,সাথে সাথে উনি পড়ে যান নদীর পাড়ে , তার পর আরোও কয়েকটা গুলি ওনার বুক্ টা ঝাঝড়া করে দেয় । ঘটনা টা ঘটে সি এন্ড বি ঘাটের কাছে আর ওনার বাড়ী থেকে কিছুটা দূরে । লাশ পাওয়া গেল তার সেই চিরচেনা পদ্মানদীর পাড়ে । তারপর থেকে আমার কাকা ৭ বছর বেঁচে ছিলেন স্মৃতি ভ্রষ্ট হয়ে আর চাচী কোনদিন রক্ত দেখতে পারতেন না , পাগলের মত দিন কাটাতেন । বাড়ীটা ছিল ফ রিদপুর শ হর থেকে ২/৩ মাইল দূরে চরমাধবদিয়া বাকীগঞ্জ মাদ্রাসার পাশে ।

স্বাধীনতার সূর্যটা তার দেখা হয় নাই । দেখা হয় নাই মায়ের সাথে ।

বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই এই মহান মুক্তিযোদ্ধা সহ স্বাধীনতার সকল সূর্য সন্তানদের ।তোমাদের এই ঋণ কোনদিন শোধ হবে না ।

5,740 total views, 17 views today

প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। পোষ্ট লেখক অথবা মন্তব্যকারীর অনুমতি না নিয়ে পোস্টের অথবা মন্তব্যের আংশিক বা পুরোটা কোন মিডিয়ায় পুনঃপ্রকাশ করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *